বাংলাদেশের সংবাদ প্রকাশ করে আলোচনার শীর্ষে আলজাজিরা : পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতি

167
বাংলাদেশের অভ্যন্তরিন বিষয় নিয়ে কাতারের টেলিভিশন চ্যানেল আলজাজিরা একটি সংবাদ প্রকাশ করেছে। যার প্রতিবাদ জানিয়ে প্রেস বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
ঘণ্টা ব্যাপী সংবাদে বাংলাদেশের কিছু তথ্য তুলে ধরা হয়েছে, এবং বলা হয়েছে এধরণের আরো তথ্য তারা প্রকাশ করবে। তাদের প্রকাশিত তথ্য অসত্য এবং মানহানিকর বলে মন্তব্য করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
গত সোমবার স্টরি আকারের প্রতিবেদনটি প্রকাশ করে আলজাজিরা। এর পরই বাংলাদেশ সরকার তাঁর অবস্থান পরিষ্কার করে বিবৃতি প্রকাশ করেছে। বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতি তে দাবি করে “কিছু উগ্রপন্থী ও তাদের সহযোগী, যারা লন্ডন এবং বিভিন্ন জায়গায় থেকে এসব করছে’, তাদের এই ‘বেপরোয়া অপপ্রচারকে’ বাংলাদেশ সরকার প্রত্যাখ্যান করছে।
ইংলিশ ভার্সনে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রেস রিলিজ টি বাংলা অনুবাদসহ বিডিজাগরণ২৪.কম এর পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো-
Press Release: Al Jazeera Report, Dhaka, 01 Feb 2021:
The Government of Bangladesh has learnt of a false and denigrating report titled “All the Prime Minister’s Men” by Al Jazeera news channel. The report is nothing over a dishonest  series of innuendos and insinuations in what’s apparently a politically intended “smear campaign” by disreputable people related to the Jamaat-i-Islami extremist cluster, that has been opposing the progressive Associate in Nursingd lay principles of the People’s Republic of Bangladesh since its terribly birth as an freelance nation in 1971.
The fact that the report’s historical account fails to even mention the horrific kill in 1971 within which Jamaat perpetrators killed several Bengali civilians and raped over 2 hundred thousand Bengali girls, is however one reflection of the political bias in Al Jazeera’s coverage which of its principal commentator, Mr. David Bergman, condemned by International Crimes court Bangladesh for difficult the official toll of 1971 Liberation War.
It is noted that the most “source” of Al Jazeera’s allegations is Associate in Nursing alleged international criminal claimed to be a “psychopath” by Al-Jazeera itself. there’s not a shred of proof linking the Prime Minister and different State establishments of Bangladesh to the current explicit individual, and it’s extremely harum-scarum for a world news channel to draw conclusions on the premise of the words of a mentally unstable person.
It is additionally not shocking that the report aligns with the string of anti-Bangladesh info routinely musical organization by a number of condemned absconding criminals and discredited people patronized by Jamaat-i-Islami Bangladesh, that on sure occasions have conspired with international extremist teams and fourth estate specially the Al Jazeera..
The Bangladesh Government rejects this desperate “smear campaign” instigated by extremists and their allies, performing from London et al, Associate in Nursingd regrets that Al Jazeera has allowed itself to become an instrument for his or her malicious political styles aimed toward destabilizing the lay democratic Government of Bangladesh with a evidenced chronicle of extraordinary socio-economic development and progress.
বাংলা ভার্সন- প্রেস রিলিজ: আল জাজিরা রিপোর্ট, ঢাকা, ১ ফেব্রুয়ারি ২০২১
বাংলাদেশ সরকার আল জাজিরা নিউজ চ্যানেলের “All the Prime Minister’s Men” শিরোনামে একটি মিথ্যা ও মানহানিকর প্রতিবেদন জানতে পেরেছে। জনগণের প্রগতিশীল ও ধর্মনিরপেক্ষ নীতিগুলির বিরোধিতা করে জামায়াতে ইসলামীর চরমপন্থী গোষ্ঠীর সাথে যুক্ত কুখ্যাত ব্যক্তিদের দ্বারা রাজনৈতিকভাবে অনুপ্রাণিত “বেপরোয়া অপপ্রচারকে” যা প্রকাশিত হয়েছে তাতে এই প্রতিবেদন সংক্ষিপ্ত এবং অন্তর্নিহিত সিরিজ ছাড়া আর কিছুই নয়। একাত্তরে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসাবে জন্মের পর থেকেই গণপ্রজাতন্ত্র বাংলাদেশ।
এই প্রতিবেদনের ঐতিহাসিক বিবরণটি একাত্তরের ভয়াবহ গণহত্যার কথা উল্লেখ করতেও ব্যর্থ হয়েছে যেখানে জামায়াত অপরাধীরা লক্ষ লক্ষ বাঙালি নাগরিককে হত্যা করেছিল এবং দুই লক্ষাধিক বাঙালি নারীকে ধর্ষণ করেছিল, আল জাজিরার প্রচারের রাজনৈতিক পক্ষপাতিত্বের একটি প্রতিচ্ছবি এটিই ছিল এর প্রধান ভাষ্যকার, মিঃ ডেভিড বার্গম্যান, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল বাংলাদেশ কর্তৃক একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সরকারি মৃত্যুর সংখ্যা চ্যালেঞ্জের জন্য দোষী সাব্যস্ত করেছেন।
এটি লক্ষ করা যায় যে আল জাজিরার অভিযোগের মূল “উৎস” হলেন আল-জাজিরা নিজেই একটি “সাইকোপ্যাথ” বলে দাবি করা একটি আন্তর্জাতিক অপরাধী। প্রধানমন্ত্রী এবং বাংলাদেশের অন্যান্য দপ্তর বা সংস্থাগুলিকে এই নির্দিষ্ট ব্যক্তির সাথে সংযুক্ত করার মতো কোনও প্রমাণ নেই, এবং একটি আন্তর্জাতিক নিউজ চ্যানেল মানসিকভাবে অস্থির ব্যক্তির কথার ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা অত্যন্ত দায়িত্বজ্ঞানহীন।
এটিও অবাক হওয়ার মতো বিষয় নয় যে জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশের পৃষ্ঠপোষকতাযুক্ত কয়েকজন দণ্ডিত পলাতক অপরাধী এবং বঞ্চিত ব্যক্তিদের দ্বারা বাংলাদেশ বিরোধী অপপ্রচারের অভ্যাসটি অভ্যাসগতভাবে অর্পিত হয়েছিল, যা নির্দিষ্ট সময়ে আন্তর্জাতিক উগ্রবাদী দল এবং সংবাদমাধ্যমের সাথে ষড়যন্ত্র করেছিল। বিশেষ করে আল জাজিরা ..
বাংলাদেশ সরকার লন্ডন এবং অন্য কোথাও কাজ করে চরমপন্থী ও তাদের মিত্রদের দ্বারা প্ররোচিত এই হতাশ “‘বেপরোয়া অপপ্রচারকে” টিকে প্রত্যাখ্যান করে এবং আফসোস করে যে আল-জাজিরা তাদের ধর্মনিরপেক্ষ রাজনৈতিক নকশার জন্য একটি পন্থায় পরিণত হতে পেরেছিল যার ফলে বাংলাদেশের অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক সরকারকে অস্থিতিশীল করতে পারে। অসাধারণ আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন এবং অগ্রগতির প্রমাণিত ট্র্যাক রেকর্ড।
এমটি/বিডিজাগরণ২৪/বাংলাদেশ